Thursday , September 16 2021
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ
Home / জয়পুরহাট সদর / জয়পুরহাটে পশুরহাটে সংক্রমন বাড়ছে

জয়পুরহাটে পশুরহাটে সংক্রমন বাড়ছে

আতাউর রহমান

কোরবানীর ঈদ সামনে রেখে জয়পুরহাটের সিমেন্ট ফেক্টরিতে গতকাল শনিবারে পশুর হাট বসেছে। করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে স্বাস্থ্য বিধি মানার নির্দেশনা থাকলেও বেশির ভাগ ক্রেতা-বিক্রেতাই এ ব্যাপারে উদাসীন। ফলে বাড়ছে সংক্রমণ ঝুঁকি। পশুর দাম নিয়ে ক্রেতা-বিক্রেতারা পরস্পর বিরোধী মন্তব্য করেছেন।

সরেজমিন দেখা গেছে, পশুর হাটে ছিলো প্রচণ্ড ভীড়। বেশীর ভাগ ক্রেতা-বিক্রেতাদের মুখে মাস্ক ছিলনা। এ ছাড়াও হাটে, ভারতীয় জাতের বেশ কিছু গরুও উঠেছিলো।
ক্রেতাদের ভাষ্য, পশুর বাজার চড়া। আর বিক্রেতাদের ভাষ্য, পশুর বাজার বাজার মন্দা। পশুর আমদানির অনুপাতে ক্রেতা কম।

মুখে মাস্ক নেই কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে তাদের ভাষ্য, প্রচণ্ড গরম, তাই মাস্ক পড়তে পারছেননা তারা। তবে তাদের পকেটে মাস্ক আছে।

গরুর বিক্রেতা সদর থানার ভাদশা ইউনিয়নের টুপাড়ার আলহাজ্ব মোজাম্মেল হোসেন(৯০) জানান, গরুর দাম খুব কম। ক্রেতারা যে দাম করছেন, সে দামে বিক্রি করলে ৮-১০ হাজার টাকা লোকসন হবে। গরম লাগায় তিনি মাস্ক না পড়ে পকেটে রেখেছেন।

একই রকমের মন্তব্য করেন গরুর বিক্রেতা সদর উপজেলার পুরানাপৈল ইউনিয়নের হেরকুণ্ডা গ্রামের হাতেম আলী (২৬), মোহাম্মেদাবাদ ইউনিয়নের আউশগারা গ্রামের শহিদুল ইসলাম (৫২)।

হাটে ভারতীয় জাতের গরু বিক্রি করতে এসেছেন রংপুর জেলার পিরগঞ্জ উপজেলার কুয়াতপুর-হামিদপুর গ্রামের আলহাজ্ব নঈমদ্দিন মিঞা(৬৫), নওগাঁর বদলগাছী উপজেলার মিঠাপুর গ্রামের ফুলমিঞা (৪০) এবং জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার পূর্বরামচন্দ্রপুর গ্রামের রাইদুল (৪২) জানান, বাজারের অবস্থা বেগতিক। এসব গরু ক্রয় করার মতো পার্টি নাই। ক্রেতারা যে দাম করছেন, সে দামে বিক্রি করলে ১০-২৫ হাজার টাকা লোকসান গুণতে হবে।

গরুর ক্রেতা সদর উপজেলার সবুজ বাগের ফিরোজ মণ্ডল জানান, গরুর বাজার চড়া। গ্রামগঞ্জ থেকে গরু কিনলে ৭-৮ হাজার টাকা কম দিয়ে কিনা যেতো।

গরুর ক্রেতা সদর উপজেলার গুলশান মোড়ের এনামুল হক জানান, দাম মোটামুটি স্বাভাবিক।

হাট ইজারাদার কমিটির পক্ষে কালিচরণ বলেন, স্বাস্থ্য বিধি বিষয়ে কিছু বলা যাবেনা। কারণ, এই স্বাস্থ্য বিধি করতে করতে আমাদের দুলাখ টাকা গেছে। বাংলাদেশের সব জায়গায় হাট হচ্ছে, শুধু জয়পুরহাটে কড়াকড়ি। মানুষকে তো পিটিয়ে স্বাস্থ্য বিধি মানানো জাবেনা। আমরা পর্যাপ্ত মাস্ক বিতরণ করছি।

আর ভারতীয় গরু প্রসঙ্গে তিনি জানান, হাটে একটাও ভারতীশয় গরু নাই। যেগুলো আছে, সেগুলো ইন্ডিয়ার মতো দেখতে, ক্রস গরু।

জেলা সিভিল সার্জন ডা. ওয়াজেদ আলী জানান, পশুর হাটে স্বাস্থ্য বিধি না মানা হলে, সমাজে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। ফলে করোনা সংক্রমণ বাড়বে।

 

About Joypur Hat

Check Also

বিরল প্রজাতির ‘শামুক খোল পাখি বাসা বেঁধেছে জয়পুরহাটে

আল মামুন, জয়পুরহাট জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল উপজেলার নিভৃত পল্লী কানাইপুকুর গ্রামে বাসা বেঁধেছে বিরল প্রজাতির প্রায় …